Home » আন্তর্জাতিক » ‘কাশ্মীরে আসুন, উড়োজাহাজ পাঠাচ্ছি’

‘কাশ্মীরে আসুন, উড়োজাহাজ পাঠাচ্ছি’

নিউটার্ন ডেস্ক

সত্য পাল মালিক, রাহুল গান্ধীসত্য পাল মালিক, রাহুল গান্ধীজম্মু ও কাশ্মীরে সহিংসতার খবর পাওয়া গেছে—কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীর এমন মন্তব্যের সমালোচনা করেছেন সেখানকার গভর্নর সত্য পাল মালিক। সত্য পাল বলেন, ‘আমি রাহুল গান্ধীকে এখানে আসতে আমন্ত্রণ জানিয়েছি। আমি আপনার জন্য উড়োজাহাজ পাঠাব। কাশ্মীরের পরিস্থিতি দেখে তারপর কথা বলবেন। আপনি একজন দায়িত্বশীল ব্যক্তি এবং আপনার এ ধরনের কথা বলা উচিত না।’

রাহুল গান্ধী গত শনিবার বলেছিলেন, জম্মু ও কাশ্মীরের সহিংসতার বিষয়ে সেখান থেকে কিছু খবর এসেছে।

ভারতনিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করার পদক্ষেপ প্রসঙ্গে গভর্নর সত্য পাল বলেছিলেন, কোনো সাম্প্রদায়িক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে এমনটা করা হয়নি। তিনি বলেন, ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ এবং ৩৫ (ক) অনুচ্ছেদ সর্বজনীন ছিল। লেহ, কারগিল, জম্মু, রাজৌরি-পুঞ্চ এবং কাশ্মীর উপত্যকায়ও এই অনুচ্ছেদ বাতিলের পেছনে কোনো সাম্প্রদায়িক দৃষ্টিভঙ্গি কাজ করেনি।

সত্যপাল আরও বলেন, কিছু মানুষ সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে একধরনের উসকানি দিয়েছে। তিনি বলেন, ‘বিদেশি সংবাদমাধ্যমকে আমরা সতর্ক করে দিয়েছি। সব হাসপাতাল আপনাদের জন্য উন্মুক্ত। যদি কোনো একজন ব্যক্তিও গুলিবিদ্ধ হয়, তবে তা প্রমাণ করুন। সংঘর্ষের ঘটনায় মাত্র চারজন পায়ে গুলিবিদ্ধ হন এবং তাদের কেউ গুরুতর আহত হননি।’

কাশ্মীর উপত্যকা বন্দিশিবিরে পরিণত করার যে অভিযোগ উঠেছে, তা নিয়ে করা এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সাধারণ মানুষ জানেই না বন্দিশিবির মানে কী। সত্য পাল বলেন, ‘আমি জানি বন্দিশিবির কী। আমি ৩০ বার কারাগারে গিয়েছি। তবু আমি এটিকে বন্দিশিবির বলব না। কংগ্রেস জরুরি অবস্থার সময় মানুষকে দেড় বছরের জন্য বন্দী করেছিল। কিন্তু কেউই সেগুলোকে বন্দিশিবির বলেনি। নিরাপত্তার জন্য আটক করাকে কি বন্দিশিবির বলে?’

9 Shares